18.12.2017

থাইল্যান্ডের মে চ্যায়েম স্কুলের বাচ্চাদের জীবনের মানোন্নয়ন

আমাদের জন্য, গ্রামাঞ্চলের শিশুদের শিক্ষা সবসময় একটি মর্মস্পর্শী বিষয় ছিলো। গরীব প্রতিবেশী পিতামাতারা তাদের বাচ্চাদের ভালো স্কুলে ভর্তি করানোর সামর্থ্য রাখে না, আর কিছুকিছু ক্ষেত্রে তাদের স্কুলে পাঠানোরও ক্ষমতা রাখে না। গ্রাম্য স্কুল বেশীরভাগ সাধারনত শিক্ষকদের উদ্যমের ওপর চলে আর তারা যতোটুকু দিতে পারে। সেখানে কখনো বই, স্কুলের ইউনিফর্ম, যথাযথ শিক্ষার উপকরনের জন্য পর্যাপ্ত পরিমানে অর্থ থাকে না এবং তারচেয়েও বেশী, ভালোভাবে পড়াশুনার জন্য শিশুদের মধ্যে পর্যাপ্ত পরিমানের শক্তি থাকে না, তাদের পিতামাতাকে ঘরে সাহায্য করতে এবং প্রায়ই স্কুলে যেতে এবং আসতে দীর্ঘ ভ্রমন করতে হয়। শিক্ষার প্রক্রিয়া এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং শিশুদের বাদ পড়ার সম্ভাবনা বেশী থাকে, যা দরিদ্রতার চক্রে অবদান বাড়ায়। 

thai kids blog1.jpg

এধরনের অবস্থা নিজেদের চোখে দেখার জন্য আমরা নিজেরা সেরকম স্থান পরিদর্শন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি, সাহায্য করেছি যেখানে তার সত্যিই চাহিদা ছিলো এবং আরো গুরুত্বপূর্ণভাবে, শিশুদের শিক্ষার সমস্যাটি সবার সামনে এনেছি। 

থাইল্যান্ডের মে চ্যায়েমের পাহাড়ে একটি ছোট গ্রাম রয়েছে, এর অধিবাসীরা কঠোর পরিশ্রমী মানুষ যারা তাদের বেশীরভাগ সময় মাঠে পিঠ বাঁকা করে কাটায়। কম-আয়ের চাষাবাদে কাজ করাতে তাদের কাছে বিলাসিতা যেমন শিক্ষামূলক উপকরন এবং এমনকি গরমের কাপড় জোগানোর মতো অর্থ থাকে না। 

বেশীরভাগ এলাকাবাসী তাদের শিশুদের যা প্রয়োজন তার সবকিছু দিতে পারে না আর তার ওপরে, তারা আশা করে যে তাদের শিশুরা তাদের পিতামাতাকে চাষাবাদে সহায়তা করুক। যেসকল মানুষ ধান ক্ষেতে কাজ করে তারা কদাচিৎ দীর্ঘ সময়ের জন্য তাদের শিশুদের স্কুলে পাঠায় না, কারন তাদের ঘরের কাজে হাত বাটানোর জন্য ঘরে রাখা হয়। 

বান স্যাম সপ হচ্ছে গ্রামের সবচেয়ে নিকটতম স্কুল, যা ঘর থেকে প্রায় এক ঘণ্টার দূরত্বে অবস্থিত আর ঝুঁকিপূর্ণ এবং কষ্টকর জায়গা দিয়ে যেতে হয়, যা গাড়ী দিয়ে অতিক্রম করা যায় না। প্রতিদিন স্কুলে যেতে ছোট বাচ্চাদের আসলেই বিপজ্জনক রাস্তা দিয়ে যেতে হয়। আর যদিও এতে তারা অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছে আর তাদের দেখে আশাবাদী মনে হয়, রাস্তায় যে ঝুঁকি রয়েছে তা হচ্ছে নির্মম সত্য। আজ পর্যন্ত এলাকাবাসীরা একটি ভয়ানক দুর্ঘটনার কথা মনে রেখেছে যা অনেক আগে ঘটেছিলো। যখন গ্রামের শিশুরা স্কুলে যাওয়ার পথে পাথর চাপা পরে মারা গিয়েছিলো। 

21533976.jpg

(বান স্যাম সপ স্কুলের রাস্তা সুন্দর, কিন্তু নিয়ত বিপজ্জনক পথ দিয়ে যায়)

স্থানীয়রা এই রাস্তা সম্পর্কে কথাবার্তা বলে, আসলে ঝুঁকিপূর্ণ ভূমি অথবা খারাপ আবহাওয়া তাদের বিব্রত করে না। তারা জানেন যে সেখানে অন্য কোন স্কুল নেই তাই তারা সেই গমনপথ পরিবর্তন করতে পারবেন না। তাদের সবচেয়ে বড় সমস্যা ছিলো যে তারা তাদের বাচ্চাদের জন্য গরম কাপড়চোপড় কেনার সামর্থ্য রাখেন না। গড়ে গ্রামের প্রতিটি বাচ্চার কাছে মাত্র এক অথবা দুই সেট কাপড় রয়েছে, যা শীত সহ্য করার জন্য পর্যাপ্ত নয়। পাহাড়ের আবহাওয়া বিশ্বাসঘাতক হতে পারেঃ গরম আবহাওয়া খুব দ্রুত শীতে পরিবর্তিত হতে পারে।

সূর্য যখন উদয় হয়, গ্রামের শিশুরা দীর্ঘ এবং ঠাণ্ডায় স্কুলে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়। পাহাড় দিয়ে যাওয়ার পথে তাদের তুষারে আচ্ছন্ন পিচ্ছিল পাথর, দীর্ঘ এবং বিপজ্জনক কর্দমাক্ত রাস্তা এবং সরু নড়বড়ে পুল পাড় করতে হয়। 

তাদের অসাধারন আশাবাদ এবং সংকল্প শিশুদের তাদের জ্ঞানের পথের সকল বাধা অতিক্রম করতে সহায়তা করে। খুব ছোট বয়স থেকেই তারা শিখেছে যে সবকিছু, জ্ঞান সমেত, সবকিছু অর্জন করতে হয়। আর আমরা বিশ্বাস করি যে কষ্ট করা সবকিছুকে পুরস্কৃত করা উচিত।

শিশুদের সাথে কথাবার্তা করে, বান স্যাম সপ স্কুলের শিক্ষকগণ এবং কিছু পিতামাতা উপলব্ধি করেছেন যে শিশুদের জন্য কোন উপহারটি সবচেয়ে ভালো হবে। আমাদের টিম প্রত্যেক শিশুর মাপ নিয়েছে আর নতুন একটি ইউনিফর্ম বানিয়েছে যা তাদের জন্য দারুন মানাবে।

ইউনিফর্ম বানানোর সময় আমরা কিছু জিনিস মাথায় রেখেছিঃ সবার প্রথমে, সেটা গরম হতে হবে। পিতামাতাদের মুল উদ্বেগ ছিলো ঠাণ্ডা আবহাওয়া, তাই আমাদের যথাযথ উপকরন ব্যাবহার করতে হয়েছে যা তাদের গরম রাখবে। দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ কোয়ালিটি ছিলো যে তা হালকা এবং ঢিলে হতে হবে, যাতে এটা তাদের চলাফেরাতে কষ্ট না দেয়। শিশুরা দীর্ঘ পথ অতিক্রম করে আর প্রায়ই তাদের পথের বাধা অতিক্রম করতে হয়। আর অবশেষে, ইউনিফর্মের পর্যাপ্ত পরিমানের টেকসই হতে হবে যা ঘনবনের মধ্যে দিয়ে দীর্ঘ ভ্রমন সহ্য করতে পারে, কর্দমাক্ত রাস্তা পারাপারের পরে সহজেই পরিষ্কার করা যায়। 

আমরা মে চ্যায়েম থেকে ফিরে এসেছি, কিন্তু এবার উপহার নিয়ে। বান স্যাম সপ স্কুলের বাচ্চাদের জন্য বিশেষভাবে তৈরিকৃত ইউনিফর্ম, শিক্ষার উপকরন এবং স্কুলের খাবারের সামগ্রী নিয়ে। শিশুরা অনেক খুশী ছিলো, আর আমরাও। মে চ্যায়েমের বাচ্চারা সত্যিই এক ধরনের অনুপ্রেরণার উদাহরন ছিলো যে আপনি যেই হন না কেন, আর যেই জায়গা থেকেই হন না কেন, আপনি সর্বদা নিজেদের জন্য এমন সুযোগ করে নিতে পারেন যা দিয়ে আপনি বড় কিছু অর্জন করতে পারেন, আপনাকে শুধু সঙ্কল্পিত হতে হবে এবং নিজের ওপর আস্থা রাখতে হবে।

সফলতার পথ প্রায়ই বুনা হয় সূচালো পাথর এবং নড়বড়ে সেতুর মধ্য দিয়ে, কিন্তু যেভাবেই হোক না কেন, আমরা সবসময় আপনাদের পাশে থাকবো। 

  • 17
  • 0
কলব্যাক

ম্যানেজার শীঘ্রই ফোন দেবে।

নম্বর পরিবর্তন করুন

আবেদন গ্রহন হয়েছে

ম্যানেজার শীঘ্রই ফোন দেবে।

অভ্যান্তরীন ত্রুটি দেখা দিয়েছে। অনুগ্রহ করে কিছুক্ষণ পরে আবার চেষ্টা করুন

নতুনদের জন্য ফরেক্স বই

ট্রেডিং শুরু করতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিসসমূহ
আপনার ই-মেইল দিন, আর আমরা আপনাকে ফ্রি ফরেক্স গাইডবুক প্রেরন করবো

ধন্যবাদ!

আমরা আপনার ই-মেইলে বিশেষ একটি লিংক প্রেরন করেছি।
সেই লিংকে ক্লিক করে ইমেইল নিশ্চিত করুন আর নতুনদের জন্য ফ্রি ফরেক্স গাইডবুক নিয়ে নিন।

আপনি পুরনো ভার্সনের ব্রাউজার ব্যাবহার করছেন।

লেটেস্ট ভার্সনে আপডেট করুন অথবা অন্য একটি ব্যাবহার করুন সুরক্ষিত, আরো সুবিধাজন এবং ফলদায়ক ট্রেডের অভিজ্ঞতার জন্য।

Safari Chrome Firefox Opera